কামাল খাঁ’র এক গুচ্ছ ছড়া

0
630
কামাল খাঁ

আমি কিন্তু রাগি না

ভাগিনা-
একটু না হয় ঘুমকাতুরে
খুব সহজে জাগি না,
সবাই বলে-অলস আমি
তাতে কিন্তু রাগি না।

ভাগিনা-
আসলে বিপদ ভয় করি না
দৌঁড়ে আমি ভাগি না,
অন্যলোকে যেটাই বলুক
তুমার মামা দাগি না।

ভাগিনা-
বাপের জমি বিক্রী করি
করিনা ধার মাগি না,
জাগলে সবাই বুঝবে ঠেলা
আমি বকরি ছাগি না।

মামু

কতা তুমার বাক্কা মজার
খালি করো আকাম,
দরলে কতা – ল যাই মামু
গরুর দুদের চা খাম।

ডাইক্কা আনছো বয়ান দিছো
দামডা দিবো কেডা,
পাঁচ শ টেহার নুট আছে কও
খুচরা নাইগা বেডা।

হুইত্তা থাহো কাম করোনা
লাগাও খালি ফাতা,
আজগা না অয় দলে বরো
একদিন খাইবা জাতা।

ফারা বাঁশের চিপাত মামু
পরবা যেদিন তুমি,
দূরঅ বইয়া বাজাম মামু
আমিও ঝুমঝুমি!

কাব্যরত্ন

কালেভদ্রে একটা লেখা কাগজে তার ছাপায়,
কাগজটা তার কাছেই থাকে দেখায় পড়ে হাঁপায়।

কাগজ এমন, সবি ছাপে হাবিজাবি যা-পায়,
ধীরে ধীরে ফোটে বুলি একাই এখন দাপায়।
হালকা কিছু যোগ করে আর বিষয়টাকে ফাঁপায়,
ক’দিন পরে মঞ্চে দেখি বক্তৃতাতে দাপায়।
মোটা ফ্রেমের চশমা চোখে কাধে ঝোলা চাপায়,
দর্জি-বাড়ি গিয়ে আবার ঢঙ্গের জামা মাপায় ।
গভীর রাতে আড্ডামারে গলির চিপায়-চাপায়,
তত্ত্ব-জ্ঞানের নানান কথায় কবি বাজার কাঁপায়।

পটরপটর

চটরচটর চটাস
ফটরফটর ফটাস
মটরমটর মটাস
কটরকটর কটাস

ঘটরঘটর ঘটাস
খটরখটর খটাস
ছটরছটর ছটাস
পটরপটর পটাস

পয়সা

সিকি আনা পাই
মার্কেটে আর নাই

এক টাকা দুই টাকা
ভিক্ষা দেবার জন্য লাগে
কিছুটা তা থাকা।
পাঁচ টাকার এক কয়েন
করে এসে জয়েন।
সবার চেয়ে দামী
উনার দাবি- ‘আমি!’

অবশেষে সব জমায়েত
ঘরের মাটির ব্যাংকে,
সবাই মিলে জটলা করে
কে আছে কোন র্্যাংকে!

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধ“অন্ধকার ভালোবাসি”- চন্দ্রশিলা ছন্দার কবিতা
পরবর্তী নিবন্ধকলকাতায় আমার বইয়ের অভিজ্ঞতা:-জাকির তালুকদার

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে