“টাকা”-সৈকত হাসান

0
642
সৈকত-এনকে

টাকা,,,,-সৈকত হাসান

কত রুপে, কত নামে তোমায় চিনি। সকল কিছুর মুলেই তো তুমি। ব্লেডের দুই দিকে ধার আর তোমার ধার চারিদিকে। সুন্দরী নারীর প্রেমে পড়লেও অসুন্দরী মেয়ের প্রেমে আমরা কেউ পড়তে চাইনা। কিন্তু চকচকে নোটের প্রতি যে ভালবাসা, পুরাতন নোটের প্রতিও সেই ভালবাসা। একটুও কমেনা। তুমি মানে সব। বিধাতার সবচেয়ে বড় সৃষ্টি মানুষ আর মানুষের বড় সৃষ্টি তুমি। বিধাতার সৃষ্টি মানুষে ধনী- গরিব, বড়-ছোট, সাদা-কাল কত ব্যবধান। কিন্তু তোমায় কোন ব্যবধান নাই। মানুষগুলো যদি টাকা হত, তাহলে হয়ত কোন ব্যবধান থাকত না। তুমি মানে সব। এককথায়,
টাকা= পৃথিবীতে বিক্রয়যোগ্য যেকোন কিছু। আজকাল যেসকল জিনিস বাজারে কিনতে পাওয়া যায়না সেইসকল জিনিসের উপরও তোমার দখল চলে এসেছে। অবশ্যই প্রেমিকার ভালবাসা, সন্তানের শ্রদ্ধা, মানুষের মন আরো অনেক কিছুই তোমায় দিয়া কেনা সম্ভব।
আয়, ব্যায়, সঞয়। মানুষের জীবনের তিন কাজের পাখির চোখ তুমি।
আয়ের কথা বলতে গেলে তোমাকে আয় করতেই হবে। এই ধরনীতে এমন কোন লোক নেই যার কোন আয় নেই। বৈধ অবৈধ, হালাল হারাম, যেভাবেই হোক তোমাকে আমাদের চাই। কেউ কাজ করে আয় করে কেউবা আকাম করে আয় করে। অবশ্য স্ত্রী কতৃক স্বামীর পকেটমারাকে আয়ের ভিতরেই ধরা যায়। ছোটবেলায় যেমন আমার আয়ের অনেকাংশ আসত বাবার পকেট মারার মাধ্যমে।
আর ব্যায়ের কথা কি বলব, তোমায় ব্যায়ে পাওয়া যায় সকল কিছু। জীবনে সংসার পেতেছি তোমায় ব্যায় করার সংগতি আছে বলেই। নইলে কি আর কলেজ জীবনের সুন্দরী প্রেমিকা আজ অন্যের ঘর করে। চেহারায় বয়সের কালচে ছোপ পরার পরেও আজ আমি সুন্দর শুধু তোমায় ব্যায় করার সংগতি আছে বলে।
কত জায়গা বানিয়ে,
কত প্রলোভন দেখিয়ে,
ডাকিছে মানুষ আজকে আমায়,
তোমায় ব্যায়ের কারনে।
আল্লাহ তায়ালা সবচেয়ে সুন্দর করে বানিয়েছে মানুষ, আর সেই মানুষের ভিতর সবচেয়ে সুন্দর হচ্ছে নারী। নারীর বিষয়ে একটা কথা বলেই শেষ করি। কথায় আছে, “সুন্দরী নারীর চোখে বিত্তবান পুরুষ কখনো বুড়ো হয় না”। এইবার বুঝিতে পারিলেতো তুমি ব্যায়ে আমি কি?
এরপর আসি সঞ্চয়ের কথায়। মানুষ তিন কারনে সঞ্চয় করে থাকে। নিরাপত্তা, উপভোগ ও প্রশান্তি। মানুষের ভবিষ্যত নানারকম অনিশ্চয়তায় ভরা। আর এই অনিশ্চয়তায় এবং ঝুকিতে ভরা জীবনে নিশ্চিত ও ঝুকিমুক্ত রাখতে মানুষ তোমায় সঞ্চয় করে।
আরেকটা হচ্ছে উপভোগ । মনের ইচ্ছা পুরন করার একমাত্র হাতিয়ার হচ্ছে টাকা। ইচ্ছেহলে পাখির মতো ডানা মেলে আকাশে উড়ে বেরানো বা সাগরে ডুবে ঝিনুক খুজে মুক্ত নিয়ে আসা, এর সবই হয় তুমি কাছে থাকলে। কথায় বলে, “তুমি হলে, বাঘের চোখও মেলে”। তাই তুমিই বলো তোমায় মোদের কি প্রয়োজন ।
তোমায় কাছে চাওয়ার শেষ কারন হচ্ছে প্রশান্তি। মানুষের এই ক্ষিদেটা আর মেটে না। যত টাকা তত প্রশান্তি। পকেট ভরা টাকা মানে পকেট ভরা প্রশান্তি, বাক্স ভরা টাকা মানে বাক্স ভরা প্রশান্তি, দুনিয়া ভরা টাকা মানে দুনিয়া ভরা প্রশান্তি। প্রেমিকার ভালবাসা একসময় অতিরিক্ত মনে হলেও টাকা কখনো অতিরিক্ত হয়না। তাইতো তোমার প্রশান্তি পাওয়ার জন্যই এত অশান্তি।
সবকিছু তোমার এত ভাল হলেও তোমার একটা জিনিস আমার চরম অপছন্দ। আর সেটা হল, তুমি চাদের আলো মোটেই ভালবাসনা। কথায় বলে “চাদের আলো ভাংগা ঘরে আগে আসে”। কিন্তু ভাংগা ঘরে তোমার দারুন অরুচি। তুমি যেতেই চাও না ভাংগা ঘরে। বলি সবার সাথে তো তোমার একই আত্বীয়তা। তাহলে ভাংগা ঘরওয়ালা তোমার কি ক্ষতি করিল। যদিও বা যাও মাঝে মাঝে, বসার আগেই বেরিয়ে পর কোন না কোন কাজের ছুতোয়। একটু বসলে কি এমন হয় বলো।
জানি আমার মতো লক্ষ মাথা, লক্ষ লক্ষ দিনে, কোটি কোটি বাক্য লিখিয়াও তোমার গুনের কথার শেষ লাইন ছুইতে পারবেনা কোনদিন। কিন্তু তুমি জানো কি, তোমার জন্য এই ধরনীর যত পাপ, যত খারাপ, যত মন্দ, যত অভিশাপ। এই ধরনীর খারাপ রাস্তাটা তৈরিই হয়েছে একমাত্র তোমার জন্য।
তাইতো বলি ওহে বাছাধন-
### যতই তুমি ক্ষমতাশালী হও
যতই সাজো মহান,
পরোকালে তুমি জাহান্নামী হবে
তুমিই দৃশ্যমান শয়তান।###

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধব্যর্থতা, সফলতা, আবেগ এবং ভালোবাসা-জাহিদ হাসান
পরবর্তী নিবন্ধ“যখন কবিতা লিখি” কবি সুপ্তি জামান‘এর কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে