নাটোরের গুরুদাসপুরে প্রতিশ্রুতির আবর্তে পাকা রাস্তার স্বপ্ন- প্রভাষক সাজেদুর রহমান সাজ্জাদ

0
484
Road
নাটোরের গুরুদাসপুরে প্রতিশ্রুতির আবর্তে পাকা রাস্তার স্বপ্ন- প্রভাষক সাজেদুর রহমান সাজ্জাদ

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলা সদরের ৪ কিলোমিটার অদুরের নিভৃত ৪টি গ্রাম। উপজেলা সদরের সন্নিকটে ওই গ্রামগুলোতে অন্তত ৩ হাজার জনের বসতি হলেও নেই বিন্দুমাত্র নাগরিক সুবিধার বালাই। একটা পাকা রাস্তা তাদের সকল সুবিধা আড়াল করেছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই কাঁচা রাস্তা যানচলাচলের অযোগ্য হয়ে পরে। পায়ে হেঁটেও চলাচলা করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে। কৃষিনির্ভর গ্রামগুলোর ফসল পরিবহন,রোগীদের জরুরী চিকিৎসা সেবা,শিক্ষার্থীদের স্কুলে যাওয়া,মসজিদে এবাদত সবই ব্যহত হচ্ছে একটা পাকা রাস্তায় অভাবে। জনপ্রতিনিধিদের প্রতিশ্রুতির আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে গ্রামবাসীর পাকা রাস্তার স্বপ্ন”-বলছি নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের বড় বাবলাতলা,কুটিপাড়া,ছোটবাবলাতলা ও চরপাড়া গ্রামের কাঁচা রাস্তার দুরাবস্থার কথা।

জানাগেছে, নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নে ৩ ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সমন্ময়ে গ্রামগুলোর অবস্থান। গ্রামগুলোতে প্রবেশের ২টি রাস্তাই কাঁচা। একটি চিকুর মোড় থেকে কুঠি পাড়া পর্যন্ত অন্যটি বিয়াঘাট ইউনিয়নের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পিছন দিক দিয়ে বাবলাতলায় প্রবেশ করেছে। সামান্য বৃষ্টিতেই রাস্তা ২টি চলাচলের সম্পুর্ন অযোগ্য হয়ে পড়ে। বর্ষা মৌসুমে কর্দমাক্ত রাস্তায় মানুষের দুর্ভোগের সীমা থাকেনা। কাদার পরে শিক্ষার্থীদের পোষাক ও বইপত্র নষ্ট হয়,যানবাহন চলাচলের অযোগ্য বলে জরুরী চিকিৎসা সেবা নিতে রোগীদের উপজেলা সদরে নেয়া সম্ভব হয়না। ফলে চিকিৎসার অভাবে অনেক রোগীর মৃত্যু হয়। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী মাসুদ রানা জানান,উপজেলা সদরের সন্নিকটে হয়েও শুধু একটা পাকা রাস্তা আমাদের নাগরিক সুবিধা বঞ্চিত করে রেখেছে। স্থানীয়-জাতীয় নির্বাচনের জনপ্রতিনিধিদের প্রতিশ্রুতি আমাদের আশা জাগায়। কিন্তু তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা না করা আমাদের মর্মাহত করে। বয়বৃদ্ধ আজগর আলী (৭৫) ক্ষোভ প্রকাশ করে জানালেন,আমি ২০ বছর ধরে শুনছি রাস্তা পাকা হবে। কিন্তু কবে হবে? মরার আগে রাস্তা দেখে মরলে কবরে গিয়ে শান্তি পাব। বিয়াঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাষক মোজাম্মেল হকের মুঠোফোনে কয়েক বার ফোন দিয়েও তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

লেখকের ফেসবুক ওয়াল থেকে

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধনাটোরের গুরুদাসপুরে তৃতীয় লিঙ্গের মাঝে মেয়র কল্যাণ ট্রাস্টের উপহার
পরবর্তী নিবন্ধকুয়োর বাইরে- স্বকৃত নোমান এর ছোটগল্প

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে