নাটোরের পলি উত্তরবঙ্গের প্রথম নারী দোতারা বাদক

0
127
Poly M Dotara

মাহাবুব খন্দকার : মহিমা খাতুন পলি। নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার দয়ারামপুর ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামে ২৯ শে অক্টোবর জন্মগ্রহণ করে। উত্তরবঙ্গের প্রথম নারী দোতারা বাদক পলি বর্তমানে সরকারি সংগীত কলেজ ঢাকায় অধ্যায়নরত আছে।

দোতারা বাদক হিসাবে পলির প্রথম হাতেখড়ি বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের নিয়মিত দোতারা বাদক ও কণ্ঠশিল্পী ওস্তাদ মিজানুর রহমান ভুট্টুর কাছে। ওস্তাদ মিজানুর রহমান ভুট্টু অতি যত্নে, তিল তিল করে গড়ে তুলেছেন তাঁর এই শীর্ষকে। তিনিও স্বপ্ন দেখেন পলি একদিন অনেক বড় হবে।

মহিমা খাতুন পলি যন্ত্রসংগীত সাধনায় রত থেকে বর্তমানে বাংলাদেশ বেতারের দোতারা বাদক হিসেবে কর্মরত, দেশের একজন গুণী সুনামধন্য দোতারা বাদক ওস্তাদ মোকাদ্দেস আলী‘র কাছেও তালিম নিচ্ছে।

বহির্বিশ্বের নারীরা বহু পূর্বে থেকেই বাদ্যযন্ত্রে পারদর্শী। আমরা বিভিন্ন চলচ্চিত্র এবং স্যাটেলাইটের মাধ্যমে তা দেখতে পাই। ধারণা পাওয়া যায় ৯০ দশকের দিক থেকে ভারতবর্ষের নারীরা বাদ্যযন্ত্রে পারদর্শিতা অর্জন করে সুনাম কুড়িয়েছে বিশ্বজুড়ে।

তখনো বাংলাদেশের নারীরা ছিল পিছিয়ে। তবে বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের মেয়েরা ডুগি-তবলা, বাঁশি দোতরাসহ অনেক রকম বাদ্যযন্ত্র প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেক স্থানেই নিজের জায়গা করে নিয়েছে।নারীদের এই অগ্রগামীতার কৃতিত্ব যেমন অভিভাবক ও সমাজের রয়েছে অপরদিকে ‘সরকারি সংগীত কলেজ ঢাকা’ বিরল ভূমিকা পালন করে চলেছে।

পলির পিতা থেকেও নেই ! দুখিনী মায়ের পৈতৃক সূত্রে পাওয়া কিছু জমির উপর নির্ভর করেই চলে তার লেখাপড়া ও যন্ত্রসঙ্গীত শিল্পী হওয়ার সাধনা।স্বামী পরিত্যাক্তা গর্ভধারিনী মা পলিকে অবিরাম উৎসাহ দিয়ে চলেছেন।

প্রতিভাবান পলির সাধনা একদিন সম্পন্ন হবে। দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে রাখবে বিরল ভূমিকা। তার প্রতিভা দেশের নারীদের অনুপ্রাণিত করবে। দেশের মুখ উজ্জ্বল করে বহির্বিশ্বে ছড়াবে তার প্রতিভার আলো। সমাজ, দেশ তথা রাষ্ট্রের কাছে সার্বিক সহযোগিতা পাবে পলি, এমনটাই মনে করেন নাটোরের সঙ্গীতাঙ্গনের সচেতন নাগরিকরা।

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধনাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বিপিএম পদকে ভূষিত
পরবর্তী নিবন্ধনাটোরের বড়াইগ্রামে ভাইস চেয়ারম্যানের শীতবস্ত্র বিতারণ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে