নাটোরে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ উপলক্ষে দুই দিনের আনন্দ উৎসব

0
35

স্টাফ রিপোর্টার নাটোরকন্ঠ :  স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল বাংলাদেশে উত্তরণ উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে আজ শনিবার থেকে নাটোরে দুই দিন ব্যাপী উৎসব শুরু হয়েছে।

সকাল সাড়ে দশটায় শহরের স্বাধীনতা চত্বর থেকে জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়াজ এর নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য শোভযাত্রায় উৎসবের সূচনা হয়।
শোভাযাত্রাটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কানাইখালী পুরনো ষ্টেডিয়ামে আয়োজিত উন্নয়ন মেলায় এসে শেষ হয়। মেলায় জেলার সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে সেবা প্রদানকারী বিভিন্ন দপ্তরের অর্ধ শতাধিক ষ্টলে সংশ্লিষ্ট দাপ্তরিক সেবা প্রদান সম্পর্কে অবহিত করা হচ্ছে।

উদ্বোধনী আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, স্বাধীনতার পর যুদ্ধ-বিধ্বস্ত ভঙ্গুর অর্থনীতিকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর গতিশীল নেতৃত্বে মাত্র সাড়ে তিন বছরে একটি ক্রমবর্ধমান উন্নয়নশীল অর্থনীতির দিকে ধাবিত করেন। তাঁর অসমাপ্ত কাজগুলো বাস্তবায়নের স্বপ্ন নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসাধারণ নেতৃত্বে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। সারাবিশ্বে প্রশংসিত এই অনন্য অর্জন আমাদের জন্যে গৌরবের।

জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়াজ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের (নাটোর ও নওগাঁ) সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ, নাটোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট সাজেদুর রহমান খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তারেক জুবায়ের, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ নাদিম সারওয়ার, নাটোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শরিফুল ইসলাম রমজান, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শহিদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও নাটোর জজ কোর্টের পিপি এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোর্ত্তজা আলী বাবলু, নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর মহাব্যবস্থাপক মোঃ সোহরাব হোসেন, নাটোর প্রেসক্লাবের সভাপতি জালাল উদ্দিন প্রমুখ।

উদ্বোধনী আলোচনা শেষে উন্নয়ন বিষয়ক ভিডিও চিত্র প্রদর্শিত হয়। আজ বিকেলে মেলা প্রাঙ্গনে তরুন উদ্যোক্তাদের জন্যে একটি সেশন ও রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

আগামীকাল রোববার সকাল দশটায় অনুষ্ঠিত হবে ‘ রুপকল্প ২০৪১ : উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনার, বেলা ১২টায় উন্নয়ন বিষয়ক কুইজ ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতা। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরষ্কার বিতরণ শেষে রাত সাড়ে আটটায় আয়োজন করা হয়েছে সমাপনী অনুষ্ঠান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে