“পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক” – আসাদজামানের কবিতা

0
566
asadjaman, natore

পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক
——-আসাদজামান

পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক।
আমি সামলে নেবো কোনমতে ; পুরোনো কাঁথা বালিশ।
তাঁর অজুর জন্য কুসুম গরম পানি তুলে রাখো বদনায়।
আলতো কচলিয়ে যাতে পাক সাফ হয়, নরম কোমল হাতে,
পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক।
প্রতি ওয়াক্তে, সুবেহ-সাদিক প্রভাতে।
হেসে খেলে গ্যাছে যে দিন অবহেলা অনাদরে
সে কথা বোলনা কেউ পিতাকে, ঘূর্ণাক্ষরে।

আমাদের যত জ্বালা, নিয়মের বালাই,জানিওনা তাঁকে
এখন তাঁর কোমল মন কতটা সহ্য ক্ষমতা রাখে!

আবাদে আবাদে ভরিয়ে তুলেছে চাষকৃত জমিন।
পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক।
ফিসফিসিয়ে কথাবলা ভীষণ অপছন্দ তাঁর।
সংসারে প্রাগৈতিহাসিক চাষা যে, কে শেখাও তাঁকে চাষ!
ফুল ঝরে ফল, বৃক্ষরূপে বারোমাস।

কেউ কোন কথা বোলনাকো, নির্ঝঞ্ঝাট থাকো,
একদম চুপ!
আমাদের আবৃত করে রাখে, আপত্য স্নেহ মায়া
শাসনকে আর দেখেনাকো চোখ,
শ্রদ্ধা সন্মান পিতাতে মূর্ত হোক।
তরতাজা সেই চোখ, ছায়ময় অহর্নিশ
কে ওখানে দাঁড়িয়ে আছো, করোনা কুর্ণিশ!

পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক।
হাত গুটিয়ে বসে না থেকে, পরিচ্ছন্ন রাখো চারপাশ
প্রার্থনার ভঙ্গিতে বসতে দাও তাঁকে, অজুহাত ডিঙ্গিয়ে
সহসা পড়ুক সিজদায়, আপাদমস্তক নুইয়ে।

পিতার জন্য জায়নামাজটাই থাক।
আমি সামলে নেবো কোনমতে, যাকিছু জঞ্জাল
তাঁর কাছে ঋণী থাকে আমার ভেতর কঙ্কাল।
সময়েরা উন্মুখ —
নিঃশব্দে চেয়ে দেখতে, প্রার্থনারত পিতার মুখ।

০২.০১.২০২০

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধ“ভগবান শিবের দ্বারা সৃষ্টি” -শ্যাম সুন্দর চক্রবর্ত্তী
পরবর্তী নিবন্ধমনির জামানের তিনটি কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে