পৃথিবীর মানুষ নামক ক্যান্সার – অমিতকুমার বিশ্বাস

0
324
অমিতকুমার, করোনা, ভাইরাস

পৃথিবীর মানুষ নামক ক্যান্সার – অমিতকুমার বিশ্বাস

ll প্রতিদিন আম্বানিদের এই ভারতবর্ষে তিনশো শিশু ডায়ারিয়াতে মরে, পথদুর্ঘটনায় মরে আরও তিনশো, টিউবারকিউলেসিসে বারোশো—–ওরা বলে।
আর ক্ষুধায়?
এরা কারা?
কারা মরে এভাবে?
আপনি-আমি সবটাই জানি।
পথের দু-ধারে এখন শুধুই ভোগ্যপণ্য, রেস্তোরাঁ।
কারা খায় খালি গপগপিয়ে?
আর কারা না-খেয়ে থাকে?
শৈশবে এক রাতে ভাত না-পেয়ে ডাকাত হবার স্বপ্ন দেখতে-দেখতে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। বাবা-মায়ের ভাতে স্বপ্নটা আসেনি আর। কিন্তু আমার বিশ্বাস প্রতিরাতে তিরিশ কোটি ভারতবাসী এই স্বপ্ন দেখেই ঘুমোয় রোজ।

যদিও এদেশে সত্যিকারের ডাকাতেরা প্লেনে চড়ে বিদেশ পালায়।

পথদুর্ঘটনায় সালমান খানেরা মরে কম, মরে ওই ফুটপাতবাসীরাই। পরিবেশকে সুপারি কিলার দিয়ে খুন করে ওরাই——-অমর্ত্য সেন ও জাঁ দ্রাজের লেখাটা মনে আছে নিশ্চয়ই?

এই ক্ষুধাও তো এক আতঙ্ক! আমার পাশের জন খেতে পায় না, পরতে পায় না, এবং মরে, না-খেয়ে মরে, চিকিৎসাহীনতায় মরে!

এ নিয়ে আশ্চর্য এক নীরবতা!

পৃথিবীর ভণ্ডগুলো দরিদ্রজনের গায়ে পাঁচিল তুলে চাতাল তুলে দারিদ্র ঢাকার চেষ্টা করে, প্যান্ট ছিঁড়ে গেলে ছুঁড়ে ফেলে দেয় আর ছেঁড়া-নকশার নতুন জামাপ্যান্ট কিনে-পরে বিদ্রুপ করে গরিবকেই। লন্ডন-ফেরত হাফগান্ডুর মতো স্মার্ট লাগে তাকেও। দেখি, দেশিনেড়ি ফেলে কোলে কোলে খাশবিলেতি, কিংবা নোট-ওড়ানো সচ্চা কমিউনিস্ট!

আশ্চর্যের বিষয়, করোনা নিয়ে এইসব খিদেজনেদের মধ্যে ভয়ডর দেখি না। মৃত্যুভয়ের কথা বললে হাসে খালি! বলে, পেত্তেকদিনই তো ভাই ভাইরাচের সাতে যুদ্দ কোরে বেঁচে আচি! অভাব-ভাইরাচ, খিদে-ভাইরাচ! কেউ জিগেয় না, খবর করে না! আর এহন কাণ্ড দ্যাখো, করোনা আসলো, সব ব্যাটা নড়েচড়ে বসলো! কান টানলিই মাথা আসপেনে, দা! হে হে! করোনা আসপে, চলেও যাবেনে, কিন্তু আমাদের জীবন থিকে এই ভাইরাচগুলোন যাবেনে কি?’ একটু থেমে বলে, ‘হে হে, যাবে নানে। আমরা যে কারুর না! না বাঁচার, না মরার! করোনাও ছোঁবেনানে, ভাই! কারণ সে- ব্যাটাও জানে, সে ছুঁলিই কলাম বেঁচে যাবানি আমি! হে হে, কারুর না! আমরা কারুর না!…ন্যান, এট্টা বিড়ি খান আর ওই সুন্দর পিথিবিডারে দ্যাখেন। দ্যাখেন, আর বাঁচবার কতা ভাবেন।’

আমি বিজয় সরকারের গানের কথা ভাবি খালি। এই গাছপালা-আকাশবাতাস সব একই রকম থেকে যাবে প্রায়, কিন্তু “সুন্দর এই পৃথিবী থেকে চলে যেতে হবে” আমাদেরই!

হয়তো পৃথিবী এমনই চাইছে।
পৃথিবী তার মানুষ নামক ক্যান্সারটা সারাতে চাইছে এভাবেই ll
ll মানিকহীরা, ঠাকুরনগর, রোদেলা বনগ্রাম ll

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধকরোনা পরিস্থিতি ও সচেতনতা, সঠিক ও কার্যকারী কর্মপন্থা জরুরী- মুন্ডা কালিদাস
পরবর্তী নিবন্ধ“কবিজীবন”- সুবীর সরকারের কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে