মেয়র উমা চৌধুরী জলি ৩৫ হাজার কর্মহীন মানুষের পাশে

0
569
Joly

শামীম হোসেন সুমন, নাটোরকন্ঠ:

নোভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে নাটোর পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি উমা চৌধুরী জলি,সরকারি ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে মোট ৩৫ হাজার কর্মহীন দিনমজুর, বস্তির দুস্থ, পত্রিকার হকারসহ কর্মহীন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রীর মানবিক সহায়তা প্রদান করছেন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, তেল, আলু, লবণ, সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। রাতের আঁধারে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিজে গাড়ি চালিয়ে মেয়র কখনো নিজে, কখনো স্বেচ্ছাসেবকদের মাধ্যমে বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেন।করোনাকে উপক্ষা করে সকাল থেকে রাত্রী অবধি কমর্হহীন দরিদ্র মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য ছুটে চলেছেন নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি। তাঁর এই ছুটে চলা কর্মহীন দরিদ্র মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের পাশাপাশি নাটোর শহরকে করোনা ও ডেক্সগু মুক্ত রাখতে নিয়মিত রাস্তা জীবানুমক্ত রাখার পাশাপাশি পৌরসভার ড্রেন ও নোংরা স্থানে জীবানুনাশক ¯েপ্র করা।

করোনা শুরু হওয়ার পর একজন নারী হয়ে দিনরাত ছুটে চলেছেন শহরের একপ্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত ।পৌর এলাকার দক্ষিণ বড়গাছা গ্রামের জয়নাল হোসেন জানান, নাটোরের পৌর মেয়র জলি চৌধুরী প্রকৃতপক্ষেই একজন মানবিক মানুষ। তিনি শুধু এই করোনা মহামারিতে নয় সব সময় পৌর এলাকার যেকোনো ওয়ার্ডের, যেকোনো গ্রামের মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসেন। একই কথা বললেন উত্তর বড়গাছার নাছির উদ্দিন, চকবৈদ্যনাথের রমিজ উদ্দিন ও কানাইখালীর অয়েন উদ্দীন । মেয়র উমা চৌধুরী বলেন, নাটোর একজন মানুষও না খেয়ে থাকবে না। সেই লক্ষ্যে দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, ব্যক্তিগত উদ্যোগে দিনমজুর, অসহায়, বয়োবৃদ্ধ, কর্মহীন, প্রতিবন্ধী ও কর্মহীনদের ৩৫ হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগী ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন। এছাড়া নাটোর সদর আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল এমপির মাধ্যমেই খাদ্যসামগ্রীর আমার কর্মীদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়েছে।

সরকারী ভাবে পৌরসভার নয়টি ওয়ার্ডে তিনি এ যাবৎ বরাদ্দ পেয়েছেন ৫৭ মেঃ টন চাল। কিন্তু ৩ লাখ জনসংখ্যার এই পৌরসভায় দীর্ঘ মেয়াদী এই লক ডাউনে এই বরাদ্দ যথেষ্ঠ নয়। একারণে তিনি নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী কোন তালিকা নয় যেখানেই তিনি দরিদ্র মানুষকে দেখছেন অথবা কেউ জানাচ্ছেন সেখানেই তিনি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন অথবা লোক মারফতে পৌছে দিচ্ছেন। তিনি বলেন, এ জন্য কোন তালিকা নয় যখন যেখানে যেমন প্রয়োজন সেভাবেই তিনি খিাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন। কাউকে কাউকে সহায়তা করছেন নগদ টাকা দিয়ে। প্রথমে পৌবাসীর মধ্যে ৪হাজার আটশত লোক খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর আওতায় চাল পেতেন। পরবর্তীতে তা বাড়িয়ে ৮ হাজার ৪’শ করা হয়।

বর্তমানে আবোরো ২হাজার ৭’শ ২৪ জন মানুষের মধ্যে বিতরণের জন্য তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। এছাড়া সরকারীভাবে ফ্রি ২০ কেজি করে চালের বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে সরকারের এসব কর্মসূচীর মাধ্যমে দরিদ্র মানুষদের খাদ্য সঙ্কট থাকবেনা। এছাড়াও ব্যক্তি উদ্যোগে অনেকেই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন। সরকারের যে বরাদ্দ তা বিভিন্ন কমিশনার ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে বন্টন করে দেয়া হয়েছে।এর পাশাপাশি তিনি নিজ অর্থায়নে চাল ডাল তেল সাবান কিনে ৫ কেজি চাল , হাফ কেজি ডাল, ১ কেজি আলু, হাফ কেজি তেল ও একটি করে সাবান দিয়ে ছোট ছোট ব্যাগ তৈরি করেছন। এসব ব্যাগ রেখে দেয়া হচ্ছে তার গাড়িতে। এরপর প্রতিদিন সামর্থ্য অনুযায়ী মানুষের মধ্যে পৌছে দিচ্ছেন।এমনকি লক ডাউন শিথিল করার পরেও চলছে তার ত্রাণ কার্যক্রম। যেখান থেকে ফোন আসছে সেখানেই খাদ্য নিয়ে পৌছে যাচ্ছেন উমা চৌধুরী জলি।

শুধু তাই নয় পৌরবাসীর ঘরে থাকার জন্য চালু করেছেন হোম ডেলিভারী সার্ভিস সেবা। পৌরসভার ব্যায়ে দুজন কর্মচারী ফোন পাওয়া মাত্র হাজির হচ্ছেন সেই বাসায়। নির্দ্দিষ্ট তালিকা ও টাকা বুঝে নিয়ে পণ্য কিনে বাসায় পৌঁছে দিচ্ছেন তারা। শহরবাসীর উদ্দেশে মেয়র বলেন, আপনারা নিজ ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন। আমাদের এ কার্যক্রমকে সহযোগিতা করুন।

গণমাধ্যমকর্মী সাব্বির হোসেন মিতুল জানান ,দেশের অন্য জনপ্রতিনিধিদের তুলনায় অনেক বেশি কর্মতৎপর মেয়র উমা চৌধুরী। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে তিনি মানবিক সহযোগিতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তাকে নিয়ে আমরা গর্ববোধ করি। অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম জানান,মেয়র জলির মানবিক সহায়তা কার্যক্রম প্রশংসার যোগ্য। বাংলাদেশ জনকল্যাণ পাটির সভাপতি সাগর আহম্মেদ জানান,জলি নটোরের একমাত্র নেতা, যিনি দলমত নির্বিশেষে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে ঘরে ঘরে মানবিক সাহায্য পৌঁছে দিয়েছেন।

মেয়র জলি চৌধুরী বহু প্রশংসিত হয়েছে মানবিক কর্মকান্ডের জন্য। প্রতিমাসের বেতনের সবটুকুই তিনি দান করেন প্রতিবন্ধীদের সহায়তা ও ছিন্নমূল শিশুদের জন্য।কর্পোরেশনের বোনাসের টাকা তিনি অসহায় দুস্থ গরিব’দের দান করেন। নাটোরের পৌরসভা থেকে কোনো সুযোগ-সুবিধা তিনি নেন না।জানা যায় মেয়র অনেক গরীব অসহায় মেয়েদের বিয়ের খরচ যুগিয়েছেন। প্রতিবন্ধীদের হুইল চেয়ার প্রদান করেছেন। রমজান মাসে বিভিন্ন ইফতারি সহায়তা দিয়েছেন নিজের পকেট থেকে। তিনি সব সময় মানবিক কর্মকাণ্ড করে যেতে চান বলে জানিয়েছেন সংবাদমাধ্যমকে।

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধসাংবাদিক মঞ্জুরুল আলম মাসুমের বাবা আজিজুল হকের মৃত্যু বার্ষিকী আজ
পরবর্তী নিবন্ধনাটোরের ২০০ কর্মহীন পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করলেন যুবলীগ নেতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে