সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল, উৎকন্ঠায় অভিভাবক, শিশুদের স্নেহশীল আচরণ প্রত্যাশা

0
643
.natorekantho, নাটোর ডিসি

নাটোর কণ্ঠ

আর কয়েক দিনের মধ্যেই প্রকাশিত হতে যাচ্ছে বিভিন্ন স্কুলের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল। সাথে রয়েছে পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল ও। তাই নিয়ে উত্কণ্ঠার যেন শেষ নেই পরীক্ষার্থী অভিভাবক মহলে। নাটোর জেলার হাজার হাজার অভিবাবকরা নিজ সন্তানের ফলাফল নিয়ে রয়েছেন উৎকণ্ঠায়। সারাবছর স্কুল আর কোচিং ছুটো ছুটি শেষে ফলাফলে অভিভাবকদের প্রত্যাশা যেন একটু বেশি।

এ প্লাস এর দৌড় এর সবাইকেই এগিয়ে যেতে হবে এমন মানসিকতা আজকে সবাইকে গ্রাস করছে। ফলে কোমলপ্রাণ শিশুদের প্রতি বাড়তি চাপ পড়েছে। এসময়ের একটু খারাপ আচরণ শিশুদেরকে বিপথে চালিত করতে পারে এমনটাই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মনোবিদরা। তারা বলছেন সমাজে মাদকের ভয়াবহতা বেড়ে যাওয়ার পিছনে রেজাল্ট পরবর্তী আমাদের আচরণ অনেকটা দায়ী। তারা বলছেন সকল শিশুর মস্তিষ্কের বেড়ে ওঠার গতি একরকম নয়। বুঝার ক্ষমতা একরকম নয়, তাই তাদের ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী আমাদের শিক্ষা দেওয়া দরকার।

কিন্তু আমার অভিভাবকরা তা বুঝতে চাইনা। যেমনটা আচরণ প্রয়োজন তাস আমরা কোমলপ্রাণ শিশুর সঙ্গে করি না। শুধু প্রত্যাশা করি ভালো ফলাফলের। শিশুর মন ভীত হয়ে পড়লে সেখান থেকে আতঙ্ক কাজ করে ফলে যেকোনো বিপদ ডেকে আনতে পারে শিশুটি। তাই রেজাল্ট খারাপ হলে বা আশানুরূপ না হলে তাকে বোঝান পরবর্তীতে ভালো করার অনুপ্রেরণা দিন, ভুলেও খারাপ আচরণ করবেন না, এতে আপনার শিশু সন্তানটির বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।

সমালোচকরা বলছেন,-”কোমলপ্রাণ শিশুদের শিক্ষাজীবন শুরু হতে না হতেই পরীক্ষায় ভালো নম্বরের প্রত্যাশা যেন অভিভাবকদের জেঁকেবসে। ভালো করতে পারলে স্বর্গ এনে দেবে এমন প্রতিশ্রুতি দিতেও পিছপা হননা অনেকেই। প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য শিক্ষার্থীর সাথে অসুস্থ প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়ে সম্পর্কের অবনতি হতেও দেখা গেছে কোথাও কোথাও। অথচ এটা আমাদের কাম্য নয়, আমাদের উৎসাহে নয় শিশু বেড়ে উঠবে আকাংঙ্খা নিয়ে অন্যের সাথে নয় নিজের সাথে।”

তারা আরো জানান,-”নিজে যেমন একপা একপা করে আজ ভালোভাবে হাঁটা আয়ত্ব করেছে তেমনি শিখতে শিখতে সে আরো ভালো করবে। বড় হয়ে ডাক্তার হয়ে বাড়িগাড়ি নয় বরং কিভাবে নতুন নতুন রোগের চিকিৎসায় নিজেকে সফল করে তুলতে পারে, রোগ শোকে ভুগে হাজার হাজার মানুষকে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচাতে পারে সে আকাংঙ্খা তৈরী হতে দিতে হবে। একজন সফল মানুষ হ্ওয়ার বাসনা যেন তাকে তাড়িত করে সেভাবে বড় করে তুলতে হবে। ‘আকাঙক্ষা’ এমন একটি বিষয় যা মানুষকে ভালো কিছু করতে, নতুন কিছু আবিষ্কারে উদ্বুদ্ধ করতে এবং পৃথিবীতে দৃষ্টান্ত স্থাপনে প্রবলভাবে তাড়িত করে।  ”

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধদুই দিনের সফরে নাটোরে আসছেন একদল বৃক্ষ গবেষক
পরবর্তী নিবন্ধলাঠি বাঁশি সমিতি একটি মডেল – আব্দুস ছালাম

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে