“সাহিত্য একাডেমি, নিউইয়র্ক’র মাসিক ১০৯তম আসর ! “-বেনজির শিকদার, নিউইয়র্ক থেকে: 

0
818
শিকদার এনকে

‘সাহিত্য একাডেমি, নিউইয়র্ক’র মাসিক ১০৯তম আসর !

বেনজির শিকদার, নিউইয়র্ক থেকে: 

কিছু কিছু ভালোলাগা বা সৌন্দর্যের বর্ণনা করা যায় না l এমন ভালোলাগা বা সৌন্দর্য বুঝতে হয় চেতনার উপলব্ধিতে ।

রূপ-রস আর সৌন্দর্যের মাধুর্যতায় প্রতিমাসের শেষ শুক্রবার অনুষ্ঠিত হওয়া ‘সাহিত্য একাডেমি, নিউইয়র্ক’র মাসিক সাহিত্য আসরটিও যেন তাই l

সকলের সৌকর্যের জন্য গড়ে ওঠা এ আসর চিত্তকে বিকশিত করার পাশাপাশি অন্তরের সৌন্দর্যকেও করে তুলে প্রস্ফুটিত l যে কারণে মাসের শেষ শুক্রবারটি ঘনিয়ে এলেই মন যেন অস্থির এক বিষুব রেখার ন্যায় দীপ্র হয়ে ওঠে l অতঃপর কেবলই অপেক্ষা মিলনের তন্ময় কুটিরে সকলের হৃদ্যতায় নিজেকেও মেলে ধরার অভিপ্রায়ে l

বলছি—
গত ১২-২৭-২০১৯ শুক্রবার অনুষ্ঠিত হওয়া মাসিক ১০৯তম আসরের কথা l

সাহিত্য-০৭৬

জাগ্রত হৃদয়ের মিলন সমারোহ আর বিজয়ের আনন্দ গাঁথায় অন্তর পথ হতে উঠে আসা, ছোট ছোট স্ফুলিঙ্গ জ্বলে যেন তৈরী হয়েছিল এক আকাশ তারার দীপালী l হৃদ্যতার নহর আর সরস সজল ভাবে বিদগ্ধ দায়িত্ববোধে লিখে ফেলা শব্দগুলো, সকলের সম্মিলিত মানসে খুব স্বাভাবিক ভাবেই তুলেছিল তরঙ্গ বিভাস !

অন্ধ আবেগে প্রমোদ উপকরণ কিংবা প্রতিক্রিয়াশীল হওয়া নয়, নয় কোনো প্রবাদবিলাসীদের মতো কথার গল্পে অতি কথন l আসর শেষে ২৭শে ডিসেম্বর হতে আলোকের বিলোচনে ফেসবুকের ওয়াল জুড়ে চোখে পড়ছিল একে অপরের মাঝে একলব্যর মানসিকতায় সম্পর্কের মূল্যায়ন করার চিত্র l ভালোবেসে কোনো জায়গাকে, কোন কাজকে প্রাণের মাঝে ধারণ করার চিত্র l জনগণ-মন-নন্দিত হওয়া দূরে থাক; অনুভূতির উদ্দীপক হিসেবে এ যেন ভেতরের তাড়নাটি স্পষ্ট হয়ে ওঠার দৃশ্য, জীবনদর্শনের চৈতন্যটি প্রগাঢ় থেকে প্রগাঢ়তর হয়ে ওঠার দৃশ্য l

শুধু তাই নয়, বরাবরের মতো প্রতিটি আসর শেষে লেখক পলি শাহীনার ফেইসবুকে পোষ্টকৃত প্রতিবেদনের মন্তব্যে এবারেও দেখতে পাই; সময় আর সুযোগ এক না হয়ে ওঠার কারণে যাঁরা আসরটিতে উপস্থিত হতে পারেননি; তাঁদের ভেতরে প্রবাহিত হাহাকার মিশ্রিত নীরব অন্তঃস্রোত lসাহিত্য-৯

এটাতো সত্যি যে, যুক্তির বিচারে কোনো কিছুর সাম্য-কে গ্রহণ করা যত সহজ, একটু একটু করে প্রতিদিনের জীবনাচরণের মধ্য দিয়ে তাকে কার্যকর করা ঢের বেশি কঠিন l গোটা পৃথিবী জুড়ে কতশত মানুষ l মানুষে মানুষে কত বৈচিত্রতা ! একজন হতে অন্য জনের পরিচয় দেয়াও সহজ সাধ্য ব্যাপার নয় l এমনকি জীবন চলার পথে একজন মানুষ সুখ-দুঃখের যে ব্যাকুলতা বয়ে বেড়ায় তা অপরজনের জন্য বোঝা মুশকিল l কিন্তু কবিতায় কিংবা লেখনি হতে কত সহজেই একজন মানুষের ভাবনার সহজ বোধ আমরা জানতে পারি l লাভবান হই ভবিষ্যৎ নিয়ে l শুধুমাত্র প্রাণপ্রাচুর্যকে স্বীকার করে নেবার মানসিকতাটুকু থাকলেই, শ্রদ্ধায়-ভালোবাসায় একে অপরের ভাবনা ও চিন্তা ধারাকে আগ্রহের সাথে বরণ করে নিয়ে হতে পারি সমৃদ্ধ l

সাহিত্য একাডেমি তেমনই একটি জায়গা; যেখানটাতে অনায়াসেই বাঙালির ইতিহাস, নৃতত্ত্ব, ধর্ম, সাহিত্য ও সংস্কৃতির দর্শন চিন্তাকে ছুঁয়ে যাওয়া মুখগুলোর; মোদ্দাকথা বিদগ্ধজনের স্মরণাপন্ন হওয়া যায় l তাঁদের ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যে থেকে তাঁদের প্রত্যক্ষ দর্শন বা ভাবনার স্বরূপ জানার প্রয়াস চালানো যায় l

এখানে সবার সবকিছুই একে অপরের নিকট একান্ত প্রাঞ্জল; দুর্বোধ্যতার স্থান নেই, নেই কোনো অভিঘাত l

কে আসবে কে যাবে এটাতো নির্ভর করে সময়ের নিজস্ব সংবেদনের ওপর l প্রবাদে আছে ‘প্রথমের যেখানে সারা, সেখানেই দ্বিতীয়ের শুরু’ l অতএব লক্ষ্যে পৌঁছুবার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত শেষোক্তের বিকাশ চলতেই থাকে l

প্রায় প্রতিটি আসরেই দৃশ্যত কিছু পরিচিত প্রাণের অনুপুস্থিতি সাথে যোগ হয় কিছু নতুন প্রাণের উপস্থিতি l

সাহিত্য-০

বলা বাহুল্য, প্রথমের নানাবিধ রূপাঙ্গিককে ধারণ করে যারা, তাদের লোকমানস হতে পূর্বের স্মৃতি চিহ্নও বিলুপ্ত হয়ে যায় না; মনোলোকের ওই স্মৃতিকে অনুসরণ করে দ্বিতীয়াও নব উদ্যমে, নতুন ভাবে দিতে পারে তার সার্থক রূপ; হয়ে উঠতে পারে অনণ্য-সাধারণ !

কাজের বা দায়িত্বের এই অনণ্য আধেয়কে মূর্ত করে তোলার প্রচেষ্টা অবশ্যই ব্যক্তির স্বদেশ প্রীতি, রুচিবোধ, প্রজ্ঞা ও সৃজন প্রতিভার পরিচয় বহন করে l প্রতিভাত হয় আত্মার বিশুদ্ধতা, মরমের সমবায়, এমনকি আন্তরিকতার পরিচয় l নতুন চৈতন্যে, নতুন আঙ্গিকে স্নাত হয়ে উঠতে প্রয়োজন শুধু একে অপরের আত্মার সাথে আত্মিক যোগ সাধনের l

একদিন এমন সময় আসবে, যেদিন সুপ্তিমগ্ন হয়ে থাকা নয়; চেতনায়, ভাবাদর্শে তৈরী হবে মৌতাত, অতঃপর প্রতিটি প্রাণের চৈতন্যকে করে রাখবে আচ্ছন্ন l অনুঘটকের ভূমিকায় কেবলমাত্র ফেইসবুকের পাতায়-ই নয়; প্রত্যেকেই প্রত্যেকের জায়গা হতে দৃঢ়তায় একাডেমির এ ঘরটির প্রবল প্রতাপ, অমিত শক্তিধারা কিংবা দৃঢ়মূল-গতিময়তার দিয়ে যাবেন সুললিত ব্যাখ্যা l

ছিন্নসূত্রকে জোড়া লাগিয়ে একে অপরের মাঝে আত্মিক সংযোগ ঘটানো তথা প্রাণ জুড়ানোর শান্তি সরোবর হয়ে সকলের ভালোবাসায় এভাবেই এগিয়ে চলুক ’সাহিত্য একাডেমি, নিউইয়র্ক’ l

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধ“পশরা”- কবি সমরজিৎ সিংহ এর কবিতা
পরবর্তী নিবন্ধ“মিথিলা সংক্রান্ত জটিলতা সিরিজ ৭.”-কবি সালেহীন বিপ্লবের কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে