“স্বভাব বৈরাগী”- লিপি চৌধুরী’র কবিতা

0
520
লিপি এনকে

স্বভাব বৈরাগী
লিপি চৌধুরী

খাঁচার পাখির আকাশ খোঁজ নিছকই এক বিভ্রম।
আকাশ জুড়ে কুয়াশা জগৎ।
ধূমকেতুর মতো তা ঘর ছাড়ার
হাতছানি হলেও আশ্রয় কখনোই নয়।
সে কথা বোঝার আগেই পাখি
উড়ে গেছে বসন্তের দক্ষিণ হওয়ায়।
ঘরের ভেতর চরিত্র গুলো যখন
আগুন জ্বালাতে পারে না
আবেগী মন তখন বাহির হতে চায়।
মন যে অগ্নির জাতক,
দোসর খুঁজে ঝাঁপ দেয় আগুনে।
ওমের পশম শরীরে জড়াতে জড়াতে
কখন যে ভালোবাসা কণ্ঠলগ্না হয়ে যায় টের ও পায় না।
তারপর লাল,নীল,হলদে,সবুজে ডুব।
দ্রবীভূত হতে হতে হঠাৎ যখন চুম্বনের গভীরতা
কেবল মোহরের থলির ছলনা হয়ে যায় মক্ষি
তখন এক হ্যাঁচকায় সেই প্রতারক কণ্ঠী ছিঁড়ে ফেলে
ফিরে আসতে চায় ঘরে।
কিন্তু ততদিনে ঘর শুধু মাত্র কংক্রিট।
কপালের সিঁদুর মুছতে মুছতে
সে অনুভব করে প্রেম কেবল মরীচিকা।
যতটা কম চেনা যায় ততটাই সুখ।
সব টুকু পুড়ে যাবার পর অস্তি থেকে জেগে ওঠে অমূল্য।
তার মৃত্যু নেই।
“ঘরে বাইরে আজ”কি একটুও বদলাতে পেরেছে চরিত্র গুলো?
না কি চরিত্র বদলায় না?
“শুধু যাওয়া আসা শুধু স্রোতে ভাসা”।
“প্রেম যে স্বভাব বৈরাগী”

হাওড়া,পশ্চিমবঙ্গ, ভারত।

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধ“ভরা এ রৌরবে”- মৃন্ময় চক্রবর্তী’র কবিতা
পরবর্তী নিবন্ধ“মিথিলা সংক্রান্ত জটিলতা-১,৩,৪-“-সালেহীন বিপ্লবের কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে