দৃষ্টিনন্দন শিমুল বাগানে একদিন -বেণুবর্ণা অধিকারী

0
799
www.natorekantho.com

বেণুবর্ণা অধিকারী : বসন্তে শিমুলের সান্নিধ্যে ঘুরে এলাম অবশেষে। এটা ঠিক গ্রুপ নিয়ে গেলে আসলে বোকামিই হতো। কারণ গ্রুপের অনেকেই আয়েসী মানুষ, এমন কঠিন জার্নি সবাই করতে পারত না। আর বালির মধ্যে দীর্ঘপথ পাড়ি দিতে হতো যা সবার দ্বারা সম্ভব হতোনা।

www.natorekantho.com

আসলে অন্য অনেকেই এই শিমুল বাগানের লেখা পোস্ট করেছে কিন্তু যাতায়াতের এই সমস্যাগুলো হয়তো তাদের ইয়াং বয়সের জন্য সমস্যাই না। কিন্তু যারা আয়েসি ট্যুর করে তাদের জন্য এই সময় সেখানে যাওয়া সত্যি অনেকটাই ঝুকি। বিশেষ করে শিমুলবাগানের ফুলের জন্যতো এই ঋতুতেই যেতে হয়। তবে বর্ষাকালে টাঙুয়া হাওড়ে ঘুরতে গেলে গাছ দেখা যাবে, কিন্তু ফুল থাকবে না।

www.natorekantho.com

যাক এনা পরিবহনের বাসেই চলে গেলাম সুনামগঞ্জ। সেখানে যাবার আগে বন্ধু সুদীপ্তর সাথে কথা বলে কোথায় উঠবো জেনে নিয়েই সেখানে উঠেছিলাম, হাওড় বিলাশ রিসোর্টে। খুবই অমায়িক সেই রিসোর্টের এক মালিক, নাম তানভির। ভোরে ঘুম থেকে উঠে আমরা চলে গেলাম ব্রিজের ওপাড়ে যেখান থেকে মোটরসাইকেল ভাড়া নিতে হয়।

www.natorekantho.com

এক মোটরসাইকেলে ২/৩ জন করেই সেখানে যাতায়াত করে। কিন্তু আমরা গিয়েছি ২ জন। সেখানকার মানুষ সবাই শুকনা তাই তিনজন চড়তে তাদের সমস্যা হয় না। প্রায় ৩০ কি.মি পথ তাহিরপর, লাউয়ের গড়। পথে যেতে যেতে ভালই শীত অনুভূত হলো, গরম কাপড় নেয়া হয়নি কারণ ঢাকাতে রীতিমত গরম এখন। যাওয়ার পথে অনেক শিমুল গাছ চোখে পড়লো। তার মানে এই অঞ্চলে শিমুল ভালই হয়।

www.natorekantho.com

লাউয়ের গড় বাজারের এক হোটেলে ২টা ডিম আর রুটি, লাউয়ের তরকারী দিয়ে নাস্তা সেরে আমরা বালির পথ হাঁটা শুরু করলাম। কোন কোন জায়গায় যাদুকাটা নদীর পানি জমে থাকায় অনেকটা পথ ঘুরে নদীর কাছে গেলাম। প্রায় ১ থেকে দেড় কি.মি হেঁটে যেতে হবে।

www.natorekantho.com

৫টাকা দিয়ে নদী পার হয়ে আবারো ১ কি.মি হেঁটে আমাদের কাঙ্ক্ষিত শিমুল ফুলের দেখা পেলাম। দূর থেকে অনেকটা অংশ আলোকিত করে দাঁড়িয়ে আছে একরাশ শিমুল গাছ।

www.natorekantho.com

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার লাউয়ের গড়ে ১৪ বছর আগে ২ হাজার ৪০০ শতক জমিতে শুধুই সৌখিনতার বসে এই শিমুল বাগান গড়ে তোলেন, জয়নাল আবেদীন নামে স্থানীয় এক ধনাঢ্য ব্যবসায়ী।
অনেক সাধনার শিমুল আমার, যার জন্য এতোটা পথ আমি পাড়ি দিয়ে এলাম।

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধ“প্রার্থী হয়ে রই” -কবি শাহিনা রঞ্জু‘এর কবিতা
পরবর্তী নিবন্ধ“ভেবে দেখতে পার” – কবি শাহিনা রঞ্জু’এর কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে