বড়াইগ্রামে সরিষা’র বাম্পার ফলন

0
324

নাটোর কন্ঠ : নাটোরের বড়াইগ্রামে তেল জাতীয় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির উজ্জল সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমিন সুলতানা। মঙ্গলবার (১লা আগষ্ট) উপজেলা পরিষদ মিলানায়তনে কৃষকদের সাথে মতবিনিময় সবায় তিনি এই মন্তব্য করেন।
উপজেলা পরিষদ মিলানায়তনে মতবিনিময় সভায় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার শারমিন সুলতানা, কৃষি সম্পসারণ কর্মকর্তা রাজিব হোসাইন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রসুল আশরাফী, হযরত আলী, রেজাউল করিম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।


বক্তারা জানান, এই কার্যক্রমের প্রধান উদ্দেশ্য হলো তেলজাতীয় ফসলের সম্পসারণ এবং উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশে ভোজ্যতেলের চাহিদা পূরণ করা ও আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে ব্যয় হ্রাস করা। প্রচলিত শস্য বিন্যাসে পরিবর্তে স্বল্পমেয়াদী তেল ফসলের আধুনিক জাত অন্তর্ভুক্ত করে বর্তমান তেল ফসলের সরিষা, তিল, সূর্যমুখি প্রর্ভতি আবাদী এলাকা বৃদ্ধি করা। বøক ভিত্তিক কৃষক গ্রæপ গঠনের মাধ্যমে তেল ফসলের আবাদ স¤প্রসারণ এবং টেকসই করা।


আয়োজনে বক্তারা বলেন, নতুন উদ্ভাবিত তেল ফসলের আধুনিক প্রযুক্তির সম্প্রসারণ এবং মৌ-চাষ অন্তভুক্ত করে তেলজাতীয় ফসলের হেক্টর প্রতি ফলন ১৫-২০ শতাংশ বৃদ্ধি করা সম্ভব। এর আলোকে গবেষণা প্রতিষ্ঠান, বিএডিসি ও বিভিন্ন বীজ উৎপাদন কারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ভিত্তি বীজ সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমিন সুলতানা বলেন, প্রচলিত শস্য বিন্যাসের পরিবর্তে রোপাআমন-সরিষা-বোরো শষ্য বিন্নাসে স্বল্পমেয়াদী জাত ব্যাবহার করে তেল ফসলের আধুনিক জাত অন্তর্ভুক্ত করে দুই ফসলী জমিকে তিন ফসলী জমিতে রুপান্তর মাধ্যমে আবাদী এলাকা বৃদ্ধি করে তেল ফসল উৎপাদন করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, নতুন ফল বাগান গুলোকে ফসলের আওতায় নিয়ে শরিষা চাষ, এক ফসলী জমিতে পানি শুকোনোর সাথে সাথে এবং বোরো ধান রোপনের পুর্বে স্বল্প মেয়াদের শরিষার জাত বপন করে, রবি মৌসুমে সুর্য মূখী চাষ এবং আউশ মৌসুমে উচু ও অনাবাদী জমি গুলোতে তিল চাষের মাধ্যমে তেল জাতীয় ফসলের উৎপাদন বাড়াতে হবে। এই কার্যক্রম যাথাযত ভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশে ভোজ্য তেল আমদানি বাবদ প্রায় এক হাজার ৫০০ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করা সম্ভব।

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধবেদনায় বসন্ত -আলাউদ্দিন জালাল‘এর কবিতা
পরবর্তী নিবন্ধসাংবাদিক হেনস্তা : তদন্ত কমিটি গঠন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে