ভোট এখন উৎসব না, উত্তেজনা-আবু জাফর সিদ্দিকী

0
638
জাফর

ভোট এখন উৎসব না, উত্তেজনা-আবু জাফর সিদ্দিকী

দেশের জনগনের নজর ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের দিকে। শুধু দেশই নয়, বিদেশি পর্যবেক্ষক, হাইকমিশনারদের নজরও একই দিকে। তবে কেমন হবে ঢাকা সিটির ভোট? এর আগে ঘটে যাওয়া সেই ভোট নাকি এবার নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু ভোট হবে? সেটা দেখতে অপেক্ষা করতে হবে ১লা ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। তবে ভোট এখন আর উৎসব না, উত্তেজনা। সংঘর্ষ, হামলা-মামলা আর গ্রেফতার বেড়ে যায় যেকোন ভোট এলেই। বাঙালির চিরায়ত জীবনে বারো মাসে তেরো পার্বণ। অনেক না পাওয়ার বেদনা, বঞ্চনার দুঃখ কিছুটা হলেও দূর করে এই পার্বণের উপলক্ষগুলো।

আধুনিক বাঙালির জীবনে নতুন পার্বণ হিসেবে যোগ হয়েছে নির্বাচন বা ভোট। ভোট এলেই অধিকার সচেতন বাঙালি একটা উৎসবের আমেজে মেতে ওঠে। ধনী-দরিদ্র, ক্ষমতাবান-ক্ষমতাহীন, ধর্ম-বর্ণ-জাতিনির্বিশেষে কেমন জানি সবাই ভোট উৎসবে মেতে ওঠে। বিগত ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন, উপজেলা নির্বাচন, পৌর নির্বাচন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, সিটি নির্বাচন, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচন, পরবর্তীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সকল নির্বাচনই হয়েছে কারচুপি, কেন্দ্র দখল, গোলাগুলি, হামলা-মামলা আর গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে।

বিগত জাতীয় নির্বাচনে বিরোধীদলীয় সিংহভাগ প্রার্থীদের ওপর হয়েছে হামলা এবং তারা নিজেরাও হয়েছে বিভিন্ন গায়েবী মামলার আসামী। আগের দিনের নির্বাচন হতো উৎসবমূখর পরিবেশে। আর এখন হয় উত্তেজনা আর সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে। তবে আর যাই হোক এভাবে ভোট হলে তাকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট বলা যায়না। নূন্যতম প্রশ্নের উর্দ্ধে যে ভোট অনুষ্ঠিত হয় তাকেই কেবল নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু ভোট বলা হয়। দেশবাসী অপেক্ষায় আছে সেই কাঙ্খিত নিরপেক্ষ ভোটের জন্য। ইসি কি পারবে এমন একটা ভোট উপহার দিতে ? নাকি আবারও ব্যর্থ হবে ? যেকোন জিনিস সুষ্ঠু হলে ভাল হয়, তাতে জবাবদিহিতা থাকে। জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে ইসিকেই। ইসির যে পরিমাণ জনবল আছে তাতে সুষ্ঠু নির্বাচন দেয়ার জন্য যথেষ্ট।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জমজমাট প্রচারণায় ভোট উৎসবের আমেজ আছে। পাশাপাশি ভোটারদের মধ্যে শঙ্কাও বিরাজ করছে। আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি ঘুরে ফিরে শঙ্কার কথাই বলছে। তবে দৃশ্যমান হলো, দুই একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া এখনো সব মেয়র প্রার্থীই সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রচার নিয়ে কারও তেমন কোনো প্রশ্ন নেই। ২০১৪ সালের পর এই প্রথম ঢাকায় সব প্রার্থীদের একসঙ্গে পোস্টার দেখা যাচ্ছে।

কাউন্সিলর প্রার্থীরাও দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করছেন। তবে কিছু কিছু জায়গায় দুই প্রতিপক্ষ ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে বাধা ও হামলার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এ দিকে সরকার সমর্থিত মেয়র প্রার্থীরা বিএনপিসহ অন্যান্য প্রার্থীদের নির্ভয়ে গণসংযোগের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। নির্বাচন কমিশন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সব প্রার্থীর জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে। ভোটে শেষ পর্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশ বজায় রাখা হবে। ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য সব ধরনের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। তবে ভোটের দিনে পরিবেশ কেমন হবে তা এখনো বলা যাচ্ছে না। সুষ্ঠু ভোট তো সকলেরই আকাঙ্খা। সেই আকাঙ্খা পূরণ করা হোক।

আবু জাফর সিদ্দিকী সংবাদকর্মী, নাটোর

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধসবাইকে অল্পতেই আপন ভাবি, এটা আমার গুণ-আবু জাফর সিদ্দিকী
পরবর্তী নিবন্ধ“নির্বাসিত কবি”- কবি বেনজির শিকদার‘এর কবিতা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে