“এসো দেশ দেখি” ভ্রমন কাহিনী -লুৎফুন নাহার তিথি

0
575
www.natorekantho.com

লুৎফুন নাহার তিথি : আপনাদের আমি আজ জানাব, দুর্গাসাগর দিঘীর কথা। দুর্গাসাগর দিঘী হলো, বাংলাদেশের দক্ষিণে বরিশাল জেলার অন্তর্গত একটি বৃহৎ দিঘী। বরিশাল শহর থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার উত্তরে স্বরূপকাঠি – বরিশাল সড়কে মাধবপাশায় এর অবস্থান। শুধু জলাভূমির আকার ২৭ একর। পার্শবর্তী পাড় ও জমি সহ মোট আয়তন ৪৫.৪২ একর।

www.natorekantho.com

১৭৮০ সালে চন্দ্রদ্বীপের পঞ্চদশ রাজা শিব নারায়ন এই বিশাল জলাধারটি খনন করেন। তার স্ত্রী দুর্গামতির নামানুসারে এর নাম করন করা হয় দুর্গাসাগর। চন্দ্রদ্বীপের পরগনার তৎকালীন রাজা শিব নারায়ন। কথিত আছে, রানী দূর্গাবতী একবারে যতদূর পর্যন্ত হেঁটে গিয়েছিলেন ততদূর পর্যন্তই এ দিঘী খনন করা হয় তিন লাখ টাকা ব্যয়ে। অনেকে বলেন, দিঘী খননে এক রাতে প্রজা দরদী রানী প্রায় ৬১ কানি জমি হেঁটেছিলেন।

www.natorekantho.com

১৯৭৪ সালে তৎকালিন সরকারের উদ্যোগে দিঘীটি পুনরায় সংস্কার করা হয়। বর্তমানে “দুর্গাসাগর দিঘীর উন্নয়ন ও পাখির অভয়ারন্য” নামে একটি প্রকল্পের অধিনে বরিশাল জেলা প্রশাসন দিঘীটির তত্ত্বাবধান করছে। দুই দিকে ‍প্রবেশের জন্য দুইটি গেট আছে। দিঘীর মাঝখানে জঙ্গলপূর্ণ একটি ছোট দ্বীপ আছে। শীতকালে এখানে অতিথি পাখির সমাগম হয়। চৈত্রমাসের অষ্টমী তিথীতে হিন্দু ধর্মালম্বীরা এখানে পবিত্র স্নানের উদ্দেশ্যে সমবেত হন।

Advertisement
পূর্ববর্তী নিবন্ধআশিকুর রহমানের দুটি কবিতা
পরবর্তী নিবন্ধ“ফুটবল ও বাজে রেফারিং”- মাহবুব হোসেন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে